বাংলা ভাষার ‌‌‌‘ময়নাতদন্ত’

বাংলা ভাষার ‌‌‌‘ময়নাতদন্ত’

শিল্প ও সাহিত্য ডেস্ক :

বেঙ্গলি ‘থার্ড ল্যাঙ্গুয়েজ’ তাই, তেমন ভালোবাসে না
জানে দাদা, আমার ছেলের, বাংলাটা ঠিক আসে না।
বাংলা আবার ভাষা নাকি, নেই কোনও ‘চার্ম’ বেঙ্গলিতে
সহজ-সরল এই কথাটা লজ্জা কীসের মেনে নিতে?
ইংলিশ ভেরি ফ্যান্টাসটিক
হিন্দি সুইট সায়েন্টিফিক
বেঙ্গলি ইজ গ্ল্যামারলেস, ওর ‘প্লেস’ এদের পাশে না
জানেন দাদা, আমার ছেলের, বাংলাটা ঠিক আসে না।- ভবানীপ্রসাদ মজুমদার

কবি ভবানীপ্রসাদ মজুমদার কতটা আঘাত পেয়ে এ কবিতাটি লিখেছেন, সেটা জানা যায়নি।তবে চোখে আঙ্গুল দিয়ে তিনি এ প্রজন্মকে দেখিয়ে গেছেন, বাংলা নিয়ে নাক ছিটকানোর বিষয়টি। ভাষাভাষীর হিসেবে ‘বাংলা’ ভাষার অবস্থান চতুর্থ। তবে খামখেয়ালিপনার অজুহাতে এ ভাষা এখন মিশ্র ভাষা-ভাষীদের অগ্রসনের শিকার। যা আমাদের ও এ ভাষার জন্য অশনিসংকেত। রুচিশীল ও নান্দনিক বেশ কিছু শব্দ দিন দিন পুরাতন এবং ব্যবহার সীমা থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। তাছাড়া বহু শব্দের অর্থগত ভাবও সংকোচিত হচ্ছে।

সম্প্রতি এর সঙ্গে যোগ হয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অসামাজিক ভাবে ভাষার ব্যবহার। ইংরেজি-বাংলা মিশিয়ে এক অদ্ভুত জগাখিচুড়ির মতো ভাষাগত ব্যবহার হচ্ছে যত্রতত্র। অনেকেই এটিকে আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলানো বলে চালিয়ে দিচ্ছে। যদিও এটি কোনভাবেই তাল মিলানো নয়, বরং তিলকে তাল করানো বললেও ভুল হবে না। ইংরেজির মতো একটি প্রভাবশালী ভাষাকে অস্বীকার করবার উপায় নেই। স্বাভাবিকভাবেই আমরা অনানুষ্ঠানিক আবহে ইংরেজি শব্দের ব্যবহার করে থাকি। সেই ব্যবহার যথেষ্ট সাবলীলও বটে। কিন্তু বর্তমানে এই ইংরেজি-বাংলার মিশ্রণ শুধু শব্দতেই সীমাবদ্ধ নেই। ভাষাতাত্ত্বিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখতে গেলে, ইংরেজির কাঠামো অনুসরণ করে এর মধ্যে বাংলার অন্তর্ভুক্তি ঘটছে, যা একটি ভাষায় দীর্ঘদিন চললে ভাষাটি ব্যবহারের সঙ্গে সমান গতিতে তাল মিলিয়ে চলতে পারে না। অর্থাৎ ভাষাটির সর্বোচ্চ প্রমিত রুপ তখন মানুষের কাছে প্রাঞ্জলতা হারাতে থাকে, ধীরে ধীরে ভাষাটি পোশাকি হয়ে পড়ে, ব্যবহারিক ক্ষেত্রে দুর্বল হয়ে পড়ে।

একটি ভাষার পরিবর্তনকে ততটুকু্তই মেনে নেওয়া যায়, যতটুকু পরিবর্তন ভবিষ্যতে ভাষাটির স্থিতিশীলতায় প্রভাব ফেলবে না। কিন্তু স্থিতিশীলতার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়াতে পারে এমন কোন পরিবির্তনকে হালকাভাবে নেয়ার সুযোগ নেই। আবার ব্যক্তিগত গ্রহণের ভিন্নতাকে উপেক্ষা করলে, নেটিভরা তাদের নিজের ভাষায় অন্তর্ভুক্ত শব্দগুলোর ব্যঞ্জনা উপলব্ধি করার সহজাত পরিবেশের মধ্যেই বেড়ে ওঠে। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ এজন্যই বলেছিলেন, ‘শিক্ষায় মাতৃভাষাই মাতৃদুগ্ধ।’ তাই ভাষার ব্যাপারটিকে আলাদাভাবে গুরুত্ব দিয়ে দেখার সময় এসে গেছে।

তরুণ প্রজন্মের উল্লেখযোগ্য অংশের সাংস্কৃতিক বিনোদনের প্রধান মাধ্যমের জায়গাটিতে বাংলা নেই। অর্থাৎ প্রভাবশালী এই অংশের অনীহা কারণেও বাংলায় আন্তর্জাতিক মানের কনটেন্ট তৈরি হচ্ছে না। প্রথাগত পড়াশোনার বাইরে গিয়ে আমাদের সমাজ থেকে ভালো শিল্পী কিংবা কলাকুশলীও উল্লেখযোগ্য হারে তৈরি হচ্ছে না। বাংলার নিজস্ব পারম্পরিক ঐতিহ্যের সঙ্গে বাঙ্গালিদের পরিচয়েরও সুযোগ ঘটছে না তেমন। কিংবা তাদের মনোজগতটাও এমনভাবে তৈরি হচ্ছে না যা বাংলার সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক ধারার সঙ্গে সংযোগ স্থাপন করতে পারে। তাই মাতৃভাষার জন্য চিরন্তন আবেগকে মৌখিক স্বীকার করলেও উপযোগিতার জায়গাটায় তারা বাংলাকে মোটেই শীর্ষস্থান দিচ্ছে না। এসব কারণে বাংলা সস্তা জনপ্রিয়তার সহজ শিকারে পরিণত হচ্ছে।

এক কথায় বলতে গেলে, লোকরঞ্জনবাদ’ এর কুপ্রভাবে বাংলার প্রমিত এবং নান্দনিক ব্যবহারের জায়গাটি বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। গণ-গ্রহণযোগ্যতার বিষয়টি মাথায় রেখে পত্রপত্রিকা, জার্নাল এবং ম্যাগাজিনেও বাংলার পরিমার্জিত ব্যবহারের ক্ষেত্রে আপোষ করা হচ্ছে। অন্যদিকে রেডিও-টেলিভিশনেও যাচ্ছেতাইভাবে নানা কুরুচিপূর্ণ শব্দ এবং পরিমার্জনা-বিবর্জিত অপপ্রয়োগের মাধ্যমে বিষয়টিকে সাধারণ বৈধতা দেয়া হয়েছে। অনেক চটুল এবং স্থূল প্রয়োগ প্রমিত বাংলার সমান্তরালেই হচ্ছে এবং এগুলো ছড়িয়ে পড়ছে মূলত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের দ্বারা।

আমাদেরকে এই চক্র ছিন্ন করে বেরিয়ে আসতে হবে। নিজ ভাষায় বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার পথ যত উন্মুক্ত হবে, জনসাধারণের কাছে তা ততই দ্রুত এবং সাবলীলভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারবে। একটি দেশের উন্নয়ন মানে সার্বিক জনগণের উন্নয়ন। তাই জনগণকে সার্বিকভাবে সংযুক্ত করতে হলে মাতৃভাষাতেই করতে হয়। তা না হলে সুযোগ-সুবিধা একটি বিশেষ শ্রেণীর কুক্ষিগত হয়ে পড়ে।

-ইন্টারন্টে