চাকরির সাক্ষাৎকারে বেতন নিয়ে কথা বলবেন যেভাবে

একটি ভালো চাকরি কে না চায়। দেশে যেহুতু শিক্ষিত বেকারের সংখ্যা বেশি তাই চাকরি পাওয়াটা বেশ জটিল হয়ে যাচ্ছে। তবে দেশে শিক্ষিতের সংখ্যা বেশি হলেও সুশিক্ষিত নয় অনেকেই। নাম মাত্র শিক্ষিত বেকারের সংখ্যার পরিমাণটা একটু বেশি। চাকরির জন্য চেষ্টা করা হয় ঠিকই কিন্তু চাকুনি না পাওয়ার কিছু বিশেষ কারণ দেখা যায়। দক্ষতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। সেই সঙ্গে ভাইবাবোর্ডেও কিছু খুঁটিনাটি বিষয়ে মনোযোগ দেওয়া উচিত। কিছু সামান্য ভুলে হওয়া চাকরিটাও না হতে পারে। আজকে ইন্টারভিউবোর্ডে বেতনের কথা কিভাবে বলতে হয় সেটাই জানানোর চেষ্টা থাকবে।

বেতনের প্রসঙ্গে যখন কথা বলবেন: ইন্টারভিউয়ের শুরুতেই বেতনের প্রসঙ্গ তুলবেন না। আগে নিজের সম্পর্কে ভালো ধারণা তৈরি করুন সাক্ষাৎকার গ্রহণকারীদের মনে। নিজের দক্ষতা সম্পর্কে তাদেরকে জানান। চাকরির পদটির জন্য আপনিই কেন যোগ্য প্রার্থী, সেটা তাদেরকে বুঝিয়ে দিন। এরপর একদম শেষ পর্যায়ে বেতনের কথা তুলুন।

কৌশলী হতে হবে: বেতন প্রসঙ্গে কথা বলার সময় কৌশলী হতে হবে। আপনার আগের অর্জনগুলো সম্পর্কে জানাতে হবে। আপনার অভিজ্ঞতাগুলোকে কাজে লাগিয়ে কীভাবে কোম্পানির উন্নতি করা সম্ভব তা বুঝাতে হবে। মোট কথা, নতুন চাকরীটা নিয়ে আপনার উৎসাহ এবং আত্মবিশ্বাস দেখাতে হবে।

মার্কেট রিসার্চ: চাকরির ইন্টারভিউতে বেতন প্রসঙ্গে কথা বলার জন্য আগে থেকেই মার্কেট রিসার্চ করুন। আপনার সমান দক্ষতা এবং পদমর্যাদায় যারা অন্য অফিসে চাকরি করছেন তারা কতো বেতন পাচ্ছেন সেই বিষয়ে জানার চেষ্টা করুন।

নিজের প্রত্যাশার কথা ভাবুন: আপনার জীবনধারণ এবং সঞ্চয়ের জন্য কতো অর্থের প্রয়োজন সেটা হিসাব করুন। বেতনের প্রসঙ্গে কথা বলার সময় নিজের প্রত্যাশাকে গুরুত্ব দিন।